বুয়েটে ভূয়া ভূয়া স্লোগান


ভুয়া ভুয়া স্লোগান শুনে ভিসি তার বক্তব্য বন্ধ করে দেন। ভিসি এখনো তার কার্যালয়ে অবরুদ্ধ রয়েছেন।

.

আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের প্রায় ৩৬ ঘণ্টা পর নিজ কার্যালয়ে এসে তোপের মুখে পড়েছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ভিসি অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম।

 

মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) বিকালে জরুরি বৈঠকের জন্য ভিসি প্রোভোস্টদের নিয়ে তার কার্যালয়ে প্রবেশ করেন। এরপরই ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন।

 

পরে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ভিসি কথা বলেন। শিক্ষার্থীরা আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বিচার দাবি করেন। তারা এসব ঘটনায় বুয়েট কর্তৃপক্ষে দায়িত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুলেন। ঘটনার পর দীর্ঘ সময় ভিসির অনুপস্থিতি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

 

এ সময় ভিসি শিক্ষার্থীদের জানান, তিনি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সঙ্গে একমত। কিন্তু শিক্ষার্থীরা ভিসির বক্তব্যে আশ্বস্ত হতে পারেননি। এক পর্যায়ে শিক্ষার্থীরা ভুয়া ভুয়া স্লোগান শুরু করেন। ভুয়া ভুয়া স্লোগান শুনে ভিসি তার বক্তব্য বন্ধ করে দেন। ভিসি এখনো তার কার্যালয়ে অবরুদ্ধ রয়েছেন।

 

এর আগে মঙ্গলবার সকালে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বিকাল ৫টার মধ্যে উপাচার্যকে ক্যাম্পাসে আসার আলটিমেটাম দেন। তিনি না এলে কঠোর কর্মসূচির ঘোষণা করা হবে বলেও শিক্ষার্থীরা জানান।

 

রবিবার (৬ অক্টোবর) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শেরে বাংলা হলে আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। নিহত ফাহাদ বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি শের-ই বাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন।

মুল সংবাদ এখানে....