পৃথিবীর সৃষ্টিতত্ত্ব


কোরআন (৬১০-৬২৩) এ অনেকগুলি সৃষ্টিতত্ত্ব নিয়ে কিছু আয়াত রয়েছে যা আধুনিক লেখকগণ মহাবিশ্বের সম্প্রসারণ

.

কোরআন (৬১০-৬২৩) এ অনেকগুলি সৃষ্টিতত্ত্ব নিয়ে কিছু আয়াত রয়েছে যা আধুনিক লেখকগণ মহাবিশ্বের সম্প্রসারণ এবং সম্ভবত বিগ ব্যাং তত্ত্বের সাথে মিল আছে বলে মনে করেন:

যারা অবিশ্বাস পোষণ করে, তারা কি দেখে না যে আসমান ও জমিন এক সত্তা ছিল, অতঃপর আমি তাদেরকে পৃথক করে দিলাম? আর আসমান সমূহকে আমাদের হাত দ্বারা সৃষ্টি করেছি এবং আমরা তাদেরকে প্রসারিত করি। - কোরআন ৫১:৪৭

প্রাচীন গ্রীক দার্শনিকদের বিপরীতে যারা বিশ্বাস করতেন যে মহাবিশ্বের শুরুতে কোন অসীম অতীত ছিল না, মধ্যযুগীয় দার্শনিক ও ধর্মতত্ত্ববিদরা মহাবিশ্বের শুরুতে একটি সসীম অতীত ছিল সেই ধারণাকে বিকশিত করেছিলেন। এই দৃষ্টিভঙ্গি তিন আব্রাহামিক ধর্মের দ্বারা প্রচারিত সৃষ্টিতত্ত্ব দ্বারা অনুপ্রাণিত ছিল: যেমন- ইহুদীধর্ম, খ্রিস্টান এবং ইসলাম। খ্রিস্টান দার্শনিক জন ফিলোপোনস প্রাচীন গ্রিক ধারণা অসীম অতীতের বিরুদ্ধে প্রথম যুক্তি উপস্থাপন করেছিলেন। তবে, এই অসীম অতীতের বিরুদ্ধে সবচেয়ে উন্নত মধ্যযুগীয় আর্গুমেন্ট ইসলামিক দার্শনিক আল-কিন্ডি (আলকিন্দোস); ইহুদি দার্শনিক সাদিয়া গাওন (সাদিয়া বেন জোসেফ); এবং ইসলামী ধর্মতত্ত্ববিদ আল-গাজ্জালী (আলগাজেল) দ্বারা বিকশিত হয়েছিল। তারা অসীম অতীতের বিরুদ্ধে দুটি যৌক্তিক আর্গুমেন্ট উন্নত করেছিলেন, প্রথমটি হচ্ছে " প্রকৃত অসীম অস্তিত্বের অসম্ভবতা থেকে যুক্তি", যা বলে যে:

59 Views